who cares media?

media play a huge role in our lives. the Internet, TV, radio, newspapers, movies and books inform our ideas, values and beliefs. they shape our understanding of the world.

Noam Chomsky

". . . to take apart the system of illusions and deception which functions to prevent understanding of contemporary reality [is] not a task that requires extraordinary skill or understanding. It requires the kind of normal skepticism and willingness to apply one's analytical skills that almost all people have and that they can exercise."

what's wrong with Advertisement?

most of the income of for-profit media outlets comes not from their audiences, but from commercial advertisers who are interested in selling products to that audience. although people sometimes defend commercial media by arguing that the market gives people what they want, the fact is that the most important transaction in the media marketplace--the only transaction, in the case of broadcast television and radio--does not involve media companies selling content to audiences, but rather media companies selling audiences to sponsors.

this gives corporate sponsors a disproportionate influence over what people get to see or read. most obviously, they don't want to support media that regularly criticizes their products or discusses corporate wrongdoing. more generally, they would rather support media that puts audiences in a passive, non-critical state of mind-making them easier to sell things to. advertisers typically find affluent audiences more attractive than poorer ones, and pay a premium for young, white, male consumers-factors that end up skewing the range of content offered to the public.

Thursday, July 31, 2008

Fixed time for adult content on TV channels likely

New Delhi, May 8 (IANS)

After banning Fashion TV and AXN for showing allegedly 'indecent' programmes, the government appears to be having a rethink on the issue and is now considering allowing channels to beam adult content, but only in fixed time slots.

'The government is considering fixing specific timings for TV channels to beam adult content,' Information and Broadcasting Minister Priya Ranjan Dasmunsi said Tuesday in the Lok Sabha.
Requests had been received on the matter for fixing specific timings for such programmes, he admitted.

The minister, however, added that all matters relating to programmes or advertisement telecast on TV channels, including requests for 'watershed' time for the telecast of adult content, have been referred to a committee.

The government has set up a committee for a review of Programme and Advertising Code under the Cable Television Network (Regulation) Act and guidelines for certification of films under the Cinematograph Act, he said.

The recommendations of the committee have not yet been received as meetings are continuing, he said.

The information and broadcasting ministry is considering a watershed 11 p.m.-5 a.m. time slot for adult programming, sources told IANS.

The ministry banned FTV's 'Midnight Hot' programme early last month on grounds that it showed 'skimpily dressed and semi-naked models that violated good taste and decency and denigrated women'.

This act of moral policing sparked outrage among liberals and the fashion community that protested the move saying that the government should not decide what should be watched on TV and this decision was better left to responsible adults.

Earlier, the government had banned AXN's 'World's Sexiest Advertisements' on similar grounds.

© 2007 Indo-Asian News Service

Tuesday, July 22, 2008

More Form than Substance: Press Coverage of the WTO Protests in Seattle

by William S. Solomon

The mainstream U.S. news media have been shifting rightward for at least two decades, as their corporate owners enforce tighter ideological conformity. Oliver North and Pat Buchanan, for example, are now regular commentators on television talk shows. And all of the media now refer to people as "consumers," cogs in a capitalist machine. But still, news is less than half as profitable as entertainment, and media firms are intensifying pressures on their "news properties" for higher profits, which means the pursuit of upscale demographics. Owners are removing journalism's much-vaunted separation of newsroom practices and business decisions, blurring the line between news and entertainment, and forming partnerships with one another to offer online news services. As William Glaberson said in the New York Times in July 1995, "It is now common for publishing executives to press journalists to cooperate with their newspapers' `business side,' breaching separations that were said in the past to be essential for journalistic integrity." Thus, in October 1996, the Wall Street Journal reported on a personal feud between Rupert Murdoch and Ted Turner: "The combatants quietly concede that they have become far too interdependent to let the fight escalate into global warfare."

The result is increasingly slick, shallow, sensationalist, and upbeat news that lacks any capacity—and avoids any attempt—to engage the public in critical thinking on basic issues. This is especially so with business and economics: Felicity Barringer reported in the New York Times in April 1998 that,"[M]ore than 250 Pulitzers in journalism have been awarded since 1978. Business figures prominently in about 10." The news media's role, as exemplified by the New York Times, is that of an "organ of reassurance," to use Doug Henwood's phrase. A case in point is the coverage of the protests against the World Trade Organization (WTO) in Seattle, which took place concurrent with the WTO ministerial meetings of November 29 through December 4, 1999. The coverage documents the corporate media's worldview, as they impose on the events and participants what Todd Gitlin, writing in the Socialist Review in 1979, called "standardized assumptions."

This essay studies the twenty-two reports and editorials in the Los Angeles Timesand the thirty-five in the New York Times, from November 21 through December 21, 1999. These two papers are arguably the most influential daily newspapers in the United States, and among the largest. The Wall Street Journal, which has the second largest circulation in the United States, is not a general circulation newspaper; it aims primarily at financial elites, "middle management . . . startups and Internet-based companies," says Anne Stuart in CIO Magazine (December 15, 1999-January 1, 2000). And the jingoistic, tabloid-style USA Today's news reports are so brief as not to sustain lengthy scrutiny.

The Los Angeles Times is owned by the Times-Mirror Company; theNew York Times, a family-owned business since the late nineteenth century, announced in mid-March that it will be acquired by the Tribune Company in the near future. So probusiness coverage is the norm, not because of secret calculations in a top editor's office but for structural reasons. "Every publication is used to further its own interests from time to time," said a lawyer for media baron Rupert Murdoch, quoted in a piece by Elizabeth Jensen and Eben Shapiro in the Wall Street Journal in October 1996. Murdoch "does it no more often than anyone else." Ben Bagdikian, in the Guild Reporter (April 1982), notes:

The new owning corporations of our media generally insist that they do not interfere in the editorial product. All they do is appoint the publisher, the editor, the business manager and determine the budget.

If I wanted control of public information, that is all I would want. I would not want to decide on every story every day or say "yes" or "no" to every manuscript that came over the transom.
I would rather appoint leaders who understand clearly who hired them and who can fire them, who pays their salaries and decides on their stock options. I would then leave it to them.
The coverage of the Seattle protests in the New York Times and theLos Angeles Times shows a common theme: Only zealots hold radical critiques of the WTO, which actually represents the best hope for the world's future. This theme is developed in many ways. First, radical critiques are attributed solely to marginal figures who hold unconventional, impractical, and possibly unwise views. "Who on earth were they," the Los Angeles Times wondered, "and what were they so mad about?" (December 3, p. A1). Such people represent "an array of special-interest groups" (LAT, December 3, p. A1), unlike the WTO delegates, who presumably represent virtually all of the world's peoples. Worse, some of the protesters are anarchists: aNew York Times headline read, "Dark Parallels With Anarchist Outbreaks in Oregon" (December 3, p. A12).

The protesters "warn of a sinister, netherworld economy where children are exploited in Dickensian factories . . . [and] greedy corporations run roughshod over traditional ways of life" (LAT, November 28, p. A1). For them, the WTO is "a handmaiden of corporate interests" (NYT, December 1, p. A1), "the tyrannical symbol of a global economy that has shoved social priorities aside in a relentless quest for profits" (LAT, December 3, p. A1). The WTO meeting "has drawn" (LAT, December 1, p. A1) many delegates, but the protesters "descended" on Seattle (NYT, December 1, p. A1), which rather suggests a plague of locusts. Editorials were less subtle: The protesters are "a Noah's ark of flat-earth advocates" (NYT, December 1, p. A23). Their "vitriol no doubt plays well with certain audiences. . . . But many average Americans may instantly realize . . . [that] the idea of increasing corporate profits . . . is a goal you share with management" (LAT, December 5, p. C1).

Yet the coverage did not simply denigrate the protesters. Quite the contrary, it granted a degree of legitimacy to the many "peaceful" ones, as distinct from a "small knot" (NYT, December 1, p. A14) of "more militant elements" who used the police's behavior "as a cue to go on a rampage" (NYT, December 2, p. A1). This legitimacy came at a price: It oversimplified the array of views among the protesters. In so doing, it echoed Clinton's stance of siding "with the cause of many of the peaceful demonstrators"—as though they all shared one view—"even as he denounced those who engaged in violence" (NYT, December 2, p. A1). Further, it misrepresented the protesters' views: For many, Seattle was a venue for raising a more basic issue than the WTO or the World Bank—a strong critique of capitalism itself. This was abundantly clear to people in the streets of Seattle. Richard Smith, a participant, noted: "The anti-market, anti-corporate feeling, although strong, was still fairly inchoate. But most people . . . definitely were for . . . democratization of the economy. . . . Such demands are of course ultimately anti-capitalist because they can't be realized under capitalist property relations." For the New York Times, though, "the basic point the demonstrators sought to make" was "the need to reform the WTO's procedures and values" (editorial, December 2, p. A34).

Such misrepresentations supported the implication that the protesters' criticisms were not so dissimilar to those of many WTO delegates themselves. From the meeting's start, the WTO's "image . . . was . . . [that] of an institution under siege from within—among warring countries—and from without by unruly protesters" (LAT, December 2, p. A1). This scenario lent itself to a parallel theme: If only the protesters would understand "free trade" properly, then they would support the WTO. Quoting delegates to this effect was common: "These people don't understand the benefits of free trade to developing nations," said a German delegate (NYT, December 1, p. A14). Estonia's trade ambassador told some protesters, "I'm a socialist. You people are nuts" (LAT, December 1, p. A1). Swaziland's delegate said of Seattle: "International trade built this city, but people just don't get it" (NYT, December 2, p. A17). And China's chief trade negotiator stated: "Globalization is not a thing that everyone naturally understands" (NYT, December 2, p. A17).

Thus, it was the WTO's failure to explain its case well, rather than its policies, that the papers portrayed as a key cause of the demonstrations. "We need to do a better job in explaining to the general public what we do," said Mexico's trade ambassador (LAT, December 18, p. A1). "It's terribly sad to me that we have let people tell so many lies," said a delegate from El Salvador (NYT, December 2, p. A17). "Expansion of trade and investment . . . promotes the general welfare," said a former deputy U.S. trade representative. "Why they [critics] don't see that, I don't understand" (LAT, November 28, p. A1).

Language is perhaps the most basic indicator of the corporate media's views. Such terms as "free trade" and "liberalization" were not defined; their meaning was assumed to be so clear as to require no explanation. Thus "globalization" is simply a fact of life, rather like gravity; certainly it is not a continuation of colonialism and imperialism. Quite the contrary, the WTO was depicted simply as a means to render the essentially benign process of "globalization" as rational and equitable as possible. To "its most militant critics, globalization amounts to an assault . . . on deep-seated cultural values" and on the environment (LAT, November 28, p. A1). But "only recently has anyone dreamed of connecting such assorted grievances to trade policy" (LAT, November 28, p. A1). WTO proponents always "said," whereas WTO critics "argued" and "complained." In case this was too subtle, the appropriate perspective was made clear: "Economists regard free trade as just about as controversial as motherhood" (LAT, November 28, 1999, p. A1).

The protests themselves elicited the news media's longstanding aversion to social disorder—journalists are, according to Herbert Gans, the author of Deciding What's News, "as much concerned with the restoration of order by public officials as with the occurrence of disorder." Seattle "was engulfed in demonstrations that threw the opening of global trade talks into turmoil" (NYT, December 1, p. A1). A "daylong spasm of protest . . . paralyzed downtown Seattle . . . plunging parts of the city into chaos;" by day's end, "skirmishes continued between weary police and a remaining group of hard-core protesters" (LAT, December 1, p. A1). Thus "violence" was defined solely as social unrest and damage to private property, not as environmental damage and human suffering. Although police and protest groups had discussed the protest plans in advance, the police may have been misled by "extreme dissenters" (LAT, December 2, p. A1). Perhaps, the Los Angeles Times reported, the Seattle police should have been more proactive in learning the demonstrators' true intentions; in Washington, DC, the paper said, police "even use informants and undercover officers."

Reports on the protests were followed by reports commending delegates who "struggled . . . to salvage" the meeting (LAT, December 2, p. A1). Clinton's efforts "collapsed . . . after a rebellion by developing countries and deadlock among America's biggest trading partners" (NYT, December 5, p. A1). Just as Hanoi "fell" to the National Liberation Front, so the WTO talks were called the "Collapse in Seattle" (NYT, December 6, p. A30). Furthermore, despite the massive demonstrations, the WTO's impasse in Seattle was reported as solely a consequence of internal divisions. Follow-up reports noted the U.S. delegation's contention that "progress" was made, although "other countries reject the U.S. administration's thinking" (LAT, December 18, p. A1).
Overall, the Los Angeles Times had more thorough coverage of the demonstrations, including the protesters' use of the Internet and of cellular telephones. The protesters "are astonishingly sophisticated in their understanding of the most important issues facing the world's population" (December 6, p. C6). When police chased demonstrators through streets outside downtown, "onlookers shouted from balconies and rooftops, a chorus of `Let them go!'" (December 2, p. A1). The best quotation in all of the coverage was that of a young man yelling at police who were handcuffing dozens of demonstrators: `"You'll have to arrest the entire population of the world if you want to get us all!"' (December 2, p. A1).

The New York Times offered a broader context for viewing the protests. One report noted various international views: "In some countries, commentators could barely contain their glee at what they saw as a humiliating blow to American domination of the world trade agenda. . . . Brazil and other Latin American countries view the demonstrators as supporters of their own position—that the international economic order is unfair to developing countries" (December 2, p. A17). More pointed was a report that WTO officials "ducked significant action" on the "veil of secrecy surrounding its proceedings. . . . `In England, it was called the Star Chamber,'" said a Sierra Club official. Said Ralph Nader: "The first thing a dictator wants is for no one to know what he's doing" (December 4, p. A6). This was as close as either newspaper came to explaining either the WTO's workings or its history. Similarly omitted was the background of WTO Director Mike Moore who, as a member of New Zealand's cabinet, aided in the "massive sell-off of public assets to international big business"—although his administration "had no mandate for privatization" (Guardian/Observer, letter to the editor, November 27).

The New York Times' and the Los Angeles Times' coverage was in sharp contrast to that in Britain's daily Guardian and SundayObserver, which ran sixty-seven stories and editorials on the Seattle protests between November 21 and December 21, 1999. Its self-styled radical voice, made possible by the Guardian's Scott Trust, is the "single exception" to Britain's concentration of media ownership and the consequence that "proprietors and their resources set clear parameters within which the creative activity of journalism must be conducted" (as Bob Franklin pointed out in Newszak and News Media in 1997). The parameters of the Los Angeles Times and the New York Times become clearer when their coverage is contrasted to that in the Guardian/Observer. Only the latter noted the international nature of the protests. First, the Seattle demonstrators came from various parts of the globe. Second, "simultaneously [with the Seattle talks] . . . nearly 1,200 non-governmental organizations in 87 countries will be calling for wholesale reform of the WTO" (November 25). A regular reader of theGuardian/Observer would not have been surprised by the WTO's impasse in Seattle, as there were a number of advance reports to the effect that "divisions between the world's main trading blocs . . . scuppered attempts to determine an agenda for a new round ahead of next week's meeting" (November 24).

In Seattle, the Guardian/Observer's staff filed a number of reports on the demonstrators' preparations: "There is a heady whiff in the air of anti-Vietnam protests" (November 30). Both U.S. newspapers estimated the protesters' numbers at thirty thousand; the Guardian/Observer said one hundred thousand. Similarly, the latter newspaper was far more willing to criticize the U.S. delegation's behavior: In the hotels, "`the U.S. is doing a bit of heavy arm-twisting to get some of the developing countries to sign up to their position, but it seems to have backfired,'" said a European Union official (December 1). U.S. officials "left it far too late to invite prime ministers and presidents who—once it was clear that the negotiations could become a PR disaster—found that their diaries were too busy to spend a couple of days in Seattle" (December 2). Most amusing was the report of a Guardian/Observer correspondent who was mistakenly given a delegate's credentials and thus was able to attend closed-door meetings: Many delegates seemed to doze, and "the only sign of life is a Latin American delegation where the minister could well be in love with his adviser. . . . In the far distance, one delegate is blowing bubblegum. One by one the developing countries say their bit, but it looks as if the gap is far too wide to be bridged" (December 3).

Only the Guardian/Observer reported that "African, Caribbean and Latin American nations" were "furious at heavy-handed attempts by the U.S." to pressure them to agree to a deal. The Organization for African Unity said "that it was prepared to block agreement in protest at the way it was excluded from behind-the-scenes discussions" (December 4). An Indian ecologist said that the WTO "is being rejected around the world as people recognize the face of unacceptable governance and undemocratic law-making" (December 4). The social unrest in Seattle was summed up by New York City Mayor Rudolph Giuliani: "`It indicates the remaining damage that Marxism has done to the thinking of people'" (December 4).

When an issue is important to the state and the corporate sector, they shape its coverage in the mainstream U.S. news media. (This point is made more extensively by Bagdikian in The Media Monopoly and W. Lance Bennett in his essay on press-state relations in the United States in the Journal of Communication, Spring 1990.) For these media, a basic critique—much less a total rejection—of the WTO is simply unthinkable. As exemplified by the Los Angeles Times and the New York Times, these media tended to trivialize and misrepresent the demonstrators' perspectives, thus devaluing them and rendering them more compatible with corporate values. This coverage is not explicable in terms of the media's use of new technologies (e.g., laptop computers, cellular telephones, and computerized databases). Nor is it explained by journalists' claims to "objectivity," or by scholars' assertions that the news is an idiosyncratic assortment of symbols and tropes. Rather, the mainstream U.S. news media's political economy is a far more reliable guide to their content.


Wednesday, July 16, 2008

'বাংলা সিনেমা' নিয়ে

কথা হচ্ছিল 'বাংলা সিনেমা' নিয়ে। বাংলা সিনেমা কথাটি ঊধর্্ব কমা দিয়ে সীমাবদ্ধ করার কারণ হল এটি এখন অনেক অভিধা, অনেক বিতর্ক বহন করে। যাই হোক, 'বাংলা সিনেমা'-র কথা উঠতেই আমার এক বন্ধু বলল, সে সিনেমাকে দু'ভাগে ভাগ করতে চায়, এক, ভালো ছবি এবং দুই, মন্দ ছবি। এমন অদ্ভুত শ্রেণীবিন্যাস আমার মাথায় কখনও আসেনি। অবশ্য ও বেচারার দোষ আর কি? আজকাল চারপাশে অনেককেই দেখছি ভালো আর খারাপ মেরুকরণে পক্ষপাতি। পাকা শিল্পীদেরও দেখছি। বুঝে হোক বা না বুঝে, তারা যে দায় এড়াচ্ছেন তা বলাই বাহুল্য।

পদ্মাবতী কিংবা বিদ্যাসুন্দর
প্রাচীনকাল থেকেই বাংলার মানুষ সৌন্দর্যের উপাসক। পদ্মাবতী কিংবা বিদ্যাসুন্দর কাব্যে নায়িকার রূপ বর্ণনা অংশে যেসব ইরোটিক সৌন্দর্য আছে তা পড়তে গেলে আজকের যুগেও অনেকের আক্কেল গুড়ুম হয়ে যাবে। কিন্তু তখন রসিকেরা নগ্নতার ভেতর থেকেই সৌন্দর্য খুঁড়ে বের করেছে। পাপবোধে নগ্নতাকে না দেখেই দূর দূর করে তাড়ায়নি। তারা জানত সৌন্দর্যের কোনো পাপ নেই। যারা একে পাপ বলে তাদের মনের মধ্যে ময়লা, তাতে রসিকের সৌন্দর্যবোধ ব্যাহত হয় না। নগ্নতার এই সৌন্দর্য কেবল নয়, সামাজিক বন্ধন নিবিড় করার জন্য, নারী-পুরুষের স্বাভাবিক সম্পর্ক গভীরতর করার জন্য এ দেশেই সৃষ্টি হয়েছে কামসূত্র। যা অত্যন্ত উঁচুদরের শিল্প। নগ্নতার এই চর্চার সাথে ন্যায়শাস্ত্র বা ধর্মশাস্ত্রের বিরোধ এসেছে ধীরে ধীরে। কিন্তু একটি বিষয় কেউ খেয়াল করেনি, সেটি হল, বিরোধ যতই এসেছে ততই 'ওপেন সোসাইটি'-র ধারণাটি খর্ব হয়েছে। সামাজিক উদারতা মুখ থুবড়ে পড়েছে। 'নগ্নতা খারাপ'- বিষয়টি এখন এতোই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যে, স্বাভাবিক সৌন্দর্যও খারাপের পাল্লায় গিয়ে পড়েছে। এই 'সৌন্দর্যের দোষ' সামাজিকভাবে এতোটাই প্রোথিত-শেকড় হয়েছে যে এই সমাজব্যবস্থায় একটি মেয়ে যত বড় আর যত সুন্দর হতে থাকে ততই সে কুঁকড়ে যেতে থাকে। ততই সে দুই হাত দিয়ে তার বুক আড়াল করতে থাকে। সারাক্ষণ কোন এক চোখ তাকে শাসন করতে থাকে, ফলে সে সারাক্ষণ ওড়না টানতে থাকে।

'খারাপ ছবি' নষ্টা মেয়ে প্রসঙ্গে
বাপ-মাকে কন্যাদায়গ্রস্ততা থেকে মুক্তি দিতে দুই বোনের এক বোন সম্মতি না থাকলেও প্রস্তাব আসা বিয়েতে রাজি হয়। কিন্তু দেখা যায় বিয়ের নামে মেয়েটিকে পতিতালয়ে বিক্রি করে সংঘবদ্ধ একটি চক্র। ঐ পতিতালয়ের সরদারনি মেয়েটিকে শরবতে মেশানো ওষুধ খাইয়ে প্রায় অচেতন অবস্থায় এক ধনী কিন্তু বখাটে ছেলের কাছে বিক্রি করে। অচেতন অবস্থায় মেয়েটি ধর্ষনের শিকার হয়। ধনী ছেলেটি মেয়েটিকে অচেতন অবস্থায় ধর্ষন করলেও পরে তার প্রেমে পড়ে যায়। জ্ঞান ফেরার পর মেয়েটি সব বুঝতে পেরে অনেক লড়াই করে বাড়ি ফিরে আসে। কিন্তু সমাজ তথা পরিবার তার এই লড়াইয়ের মূল্য দেয়া তো দূরে থাক, তাকে মেনে না নিয়ে 'নষ্টা মেয়ে' উপাধি জুড়ে দেয়। মেয়েটির কোনো দোষ না থাকার পরও সেই নষ্টা মেয়ে। সমস্ত দায় মাথায় নিয়ে তাকেই নেমে যেতে হয় অন্ধকারে। যাবার আগে মেয়েটি বলে যায় তার বদলে একটি ছেলে যদি অপহৃত হবার পর লড়াই করে কৌশলে বাড়ি ফিরে আসতে পারতো তাহলে লোকে তাকে বাহ্বা দিত।

ধীরে ধীরে নষ্টা মেয়েটি বুঝতে পারে কেবলমাত্র সে যদি ধনী হতে পারে তবেই সে এ সমাজে স্বীকৃত পাবে, তাছাড়া নয়। কাজেই সে নেমে পড়ে ধনী হবার রাস্তায়, সত্যিকার নষ্টা মেয়ে হয়ে যায় সে। অন্যদিকে যে ছেলেটি তাকে ধর্ষন করেছিল সে তার প্রেমে পড়ে তাকে অর্জনের চেষ্টা করতে থাকে। মেয়েটি সমাজের চোখে তথাকথিত নষ্টা জেনেও সে তাকে ভালবাসা নিবেদন করে। কিন্তু মেয়েটির শক্তি হল, সে কোন দয়া-দাক্ষিণ্য নিতে রাজী নয়, সে পরিষ্কার জানিয়ে দেয়, ছেলেটি তাকে অচেতন অবস্থায় ধর্ষন করেছে বলে যদি কোন অপরাধবোধে ভোগে বলে মনে করে, এবং সেই পাপ স্খলন করতে চায়, তাহলে সে ভুল করবে। কারণ ঐ সস্তা করুণার কোন মূল্য তার কাছে নেই। অবশ্য পরবতর্ীতে তার ভালবাসা খাদহীন বুঝতে পেরে মেয়েটি একসময় তাকে স্বীকৃতি দেয়।

মুটামুটি এরকম কাহিনী নিয়েই নির্মিত ছবি 'নষ্টা মেয়ে'। ছবিটিতে যেমন সমাজের দগদগে ঘা উন্মোচনের প্রয়াস আছে তেমনি আছে কাহিনীর বৈচিত্র্য ও নারী-পুরষ সম্পর্ক নিয়ে নানা ধরনের নিরীক্ষা। সবচেয়ে বড় কথা, সমাজের তথাকথিত দর্শনের প্রতি আছে বিশাল আঘাত। আঘাতটি আছে দু'ভাবে।

এক- সীমা নামের আর্ট কলেজের একটি মেয়ের আত্মহত্যার কথা নিশ্চয়ই আমাদের সকলের মনে আছে। বখাটে ছেলেরা সীমাকে উৎপাত করবে আর সীমা নিরবে সেটা হজম করবে সেটাই চায় আমাদের সমাজ। সমাজ কখনই চায় না সীমা প্রতিবাদ করুক, এমনকি তার বাবা-মাও চায়নি। কারণ তারা ব্যক্তি হিসেবে সীমার আপনজন হলেও সামষ্টিকভাবে সমাজের চিন্তার কাঠামোরই অংশ। কাজেই তারাও সীমার পক্ষে দাঁড়ায়নি। কাজেই সীমার সামনে আত্মহত্যা ছাড়া কোনো পথ খোলা ছিল না। আত্মহত্যার কারণে সীমা সমাজকে আঘাত করতে পারেনি। কয়েকজনের আহা-উহু আদায় করতে পেরেছে মাত্র। কিন্তু আমাদের 'নষ্টা মেয়ে'টি ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে, যে পুরুষতান্ত্রিক ক্ষমতা কাঠামোর কারণেই বিন্দুমাত্র দোষ না থাকার পরও সে-ই যখন দায়ী, সে-ই যখন নষ্টা মেয়ে হিসেবে পরিবার তথা সমাজ থেকে বহিষকৃত, ঐ সমাজ কাঠামোকে সে দেখে নেবে। এই চ্যালেঞ্জটাই হচ্ছে প্রথম আঘাত।

দ্বিতীয় আঘাতটি হল, আমাদের সমাজের যারা তথাকথিত উদার মনোভাবের 'সুশীল সমাজ' তাদের প্রতি। তারা উদার, কিন্তু তারা নগ্নতাকে সহ্য করতে পারেন না। তারা গোপনে ঠিকই নগ্নতা খুঁজে বেড়ান ইন্টারনেটে কিংবা বিদেশি পর্ণো ছবিতে। কিন্তু বাংলা ছবিতে একটু কিছু দেখা গেল তো সব গেলো গেলো বলে চিৎকার জুড়ে দেন। নষ্টা মেয়ে ছবিতে সমাজের যে চেহারা উন্মোচনের চেষ্টা করা হয়েছে সেটি কোনোভাবেই পরিষ্কার করে সবকিছু না দেখিয়ে বোঝানো সম্ভব হতো না। কাহিনীর প্রয়োজনেই কিছু নগ্নতার আশ্রয় নিতে হয়েছে নির্মাতাকে। কিন্তু এই সুশীল সমাজ ওয়ালারা কেবল বাংলা ছবি হওয়ার দোষে তাকে 'অহেতুক অশ্লীলতা' বলে চালানোর অপচেষ্টা চালান। তারা বিদেশি ছবির যৌনতাকে কোনোরকম বিশ্লেষণ ছাড়াই আর্ট এবং কাহিনীর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ বলে রায় দিয়ে দেন, আর বাংলা ছবিতে নায়িকাদের বোরকা পরার দাবি জানান।

'নষ্টা মেয়ে' এই ধারণার প্রতিও একটি আঘাত। বাংলা ছবিতে নায়ক নায়িকা ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে চুমু খেতে পারবে না, এই অলিখিত ধারণা ভাঙার জন্য এটি আমাদের চেতনায় আঘাত করে। তার চেয়ে বড় কথা, আমাদের সাহিত্যে, বা সিনেমায় বা অন্য কোন মাধ্যমে নারীর অবস্থান মানেই নিষ্ক্রিয়, তার সবচেয়ে বড় সক্রিয়তা সীমার মতো আত্মহত্যা পর্যন্ত, কিন্তু সমাজের তাবত শৃঙ্খলাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে, এমনকি অপরাধবোধে দগ্ধ হতে থাকা প্রেমিকটিকেও প্রত্যাখ্যান করার মধ্য দিয়ে যে সক্রিয়তা নষ্টা মেয়েটি হাজির করে তা সত্যি প্রেরণা হবার যোগ্য।

বাংলা ছবির দর্শকরা কোথায় যাবে?
আমাদের দেশের তরুন সমাজ অশ্লীল বাংলা ছবি দেখে বখে যাচ্ছে বলে যারা হাহুতাশ করছেন তারা কি কোনো বিকল্প তাদের জন্য হাজির করেছেন? আপনারা যেসব বাংলা ছবিকে সুস্থ ধারার ছবি বলে চালাতে চাইছেন সত্যি কথা বলতে কি সেসব ছবিতে আদতে কিছুই নেই। না আছে কোনো কাহিনীর নতুনত্ব, সেই একই বস্তাপচা গল্পের জাবর কাটা, না আছে কোনো গ্ল্যামার। লোকে সেই ছবিতে কি দেখবে? আমরা যেসব ছবিকে 'অশ্লীল' বলছি সে ছবিগুলোর গল্পও বস্তাপচা, কিন্তু সেখানে কিছু 'কুইক এন্টারটেইনমেন্ট' আছে, গ্ল্যামার আছে যা মানুষকে আকর্ষণ করে।

আমাদের ছবির দর্শক কারা সেটা যদি বিবেচনা করি তাহলে দেখা যাবে তারা সকলেই খেটে খাওয়া মানুষ। 'ভদ্রলোকদের' ভাষায় নিম্নরুচির মানুষ, ছোটলোক, রিক্সাওয়ালা, দিনমজুর। অনেক সুশীল সমাজওয়ালা আবার ঘটা করে পত্রিকার পাতায় লিখেওছেন যে আজকাল সিনেমা তৈরি হয় রিক্সাওয়ালাদের জন্য। তাদের লেখায় রিক্সাওয়ালা শব্দটি যে মর্যাদা পায়, তাতে মনে হয় এই ছোটলোকদের আবার সিনেমা দেখার দরকার কী? তাদেরকে উনারা দয়া দাক্ষিণ্য করে যে দু-চারটি টাকা দেন তা দিয়ে কোনমতে চাল কিনে ভাত খেয়ে চুপচাপ শুয়ে থাকা উচিত। শালারা নাকি আবার পয়সা খরচ করে সিনেমা দেখতে যায়। যাই তোক, আমি বলি, তারা সারাদিনের অমানুষিক পরিশ্রম শেষে কষ্টের অর্জিত পয়সা খরচ করে বাংলা ছবি নামের যে বিনোদনটুকু কেনে সেখানে তাদের পয়সা উসুল করার মতো কিছু উপাদান অন্তত আছে যা ঐসব তথাকথিত সুস্থ ধারার ছবিতে নেই। ঐ ভদ্রলোকদের বলি, আপনি তো বাংলা ছবি দেখতে সিনেমা হলে যান না, আপনি তো আলিয়াঁস ফ্রাঁসেজ বা গ্যেঁটে কিংবা অন্য কোনো কেন্দ্রে ইওরোপের বা আমেরিকার ছবি দেখেন, আপনি নিও রিয়েলিজম দেখেন। তাহলে ঐ ছোটোলোকগুলো কী দেখবে আর কী দেখবে না সেটা আপনি ঠিক করে দিতে চান কেন? আপনি সেসব ছবিকে সুস্থ্য কিংবা অসুস্থ্য বলার কে?

'১৪৪ মিলিয়ন পিপল কান্ট বি রং'
আমরা যেসব বাংলা ছবিকে অশ্লীল ছবি বলছি তার সিংহভাগ দর্শক তরুণ, স্কুল পালানো ছেলে যেমন আছে তেমনি আছে কিশোর বা তরুণ শ্রমিকও। তারুণ্য মানেই বাধন ছেঁড়ার চ্যালেঞ্জ। নিয়ম ভাঙার নেশা। অশ্লীলতা সমাজে নিষিদ্ধ বলেই তারা সেটা দেখার আলাদা আগ্রহ পায়। তাছাড়া যৌনতা ব্যাপারটা জানার, নারী-পুরুষের দৈহিক সৌন্দর্য দেখার আগ্রহ বা অধিকার যাই বলি, দুটোই তাদের আছে। কিন্তু কি সিলেবাসের বিজ্ঞান বইয়ে কি অন্য কোনোভাবে সে এ সম্পর্কে জানতে পারে না। এটি কেবলই নিষিদ্ধ। এ কারণেই স্কুল পালিয়ে সোজা বাংলা সিনেমা। 'লাল-সবুজ' মার্কা বস্তাপচা 'মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ছবি' হোক বা অন্য কোনো তথাকথিত 'সুস্থ্য' ধারার ছবি হোক, এই তরুণদের চাহিদা মেটানোর মতো কোনো কনটেন্ট সেখানে নেই।

একটি এডাল্ট ওয়েব সাইটের শিরোনামে লেখা আছে 'এ পর্যন্ত ১৪৪ মিলিয়ন লোক সাইটটি ভিজিট করেছে। সূতরাং ১৪৪ মিলিয়ন পিপল কান্ট বি রং'। এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমরা অনেকেই এডাল্ট ওয়েব সাইটকে ভুল বলছি, কিন্তু পৃথিবীব্যাপী মিলিয়ন মিলিয়ন লোক এগুলো ভিজিট করছে। তাহলে কোন বাস্তবতাটার ভিত্তি বেশি শক্ত? আমি কিভাবে এতগুলো লোকের আগ্রহকে ভুল বলব? আর সবচেয়ে বড় কথা হল, যৌনতা একটি বাস্তবতা। এমন তো নয় যে যৌনতা মানব সমাজে এক্সিস্ট করে না। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, এ বিষয়টিকে যত অবদমন করা যাবে তত সমাজের উদার সহনশীলতা কমতে থাকবে।

বাংলা ছবি কারা বন্ধ করতে চায়?
ধরা যাক, আজকে সকল ধরনের অশ্লীল বাংলা ছবি বন্ধ করে দিলাম। তাহলে ঐ হাজার হাজার তরুণ সিনেমা দর্শক কোথায় যাবে? সন্দেহ নেই, যারা এটি বন্ধ করতে আগ্রহী তাদের একটি বড় অংশ ধর্মাচারী। ধর্মাচারীই বললাম, ধর্মান্ধ বললে আরো ভালো হয়। তাদের একাংশ আবার চান ঐ তরুণরা বোমা বানাতে শিখুক, অশ্লীলতা কিংবা উদারতাকে উড়িয়ে দিক, ধ্বংস করে দিক। কিছু তরুণ ঐ জঙ্গিবাদের দিকে যায়ও, কারণ তাতেও চ্যালেঞ্জ আছে। সামনে কোনো বিকল্প না থাকায় সে ঐ চ্যালেঞ্জের দিকেই যাবে।

ইওরোপে বা পশ্চিমে একটি ছেলে আর একটি মেয়ের হাত ধরাধরি করে হাঁটার দৃশ্যই সবচেয়ে স্বাভাবিক দৃশ্য, এমনকি কোনো কোনো দেশে প্রকাশ্যে চুমু খাওয়ার দৃশ্যও অত্যন্ত স্বাভাবিক ও মনোরম। বরং একটি মেয়ে আরেকটি মেয়ের অথবা একটি ছেলের আরেকটি ছেলের হাত ধরে বা গলাগলি ধরে হাঁটার দৃশ্য অস্বাভাবিক এবং ভিন্ন অর্থ প্রকাশক। অথচ আমাদের দেশে একটি মেয়ে আরেকটি মেয়ের এবং একটি ছেলে আরেকটি ছেলের হাত ধরতে শেখে, কারণ একটি মেয়ের আরেকটি ছেলের সহজ ও স্বাভাবিক ভঙ্গিতে হাত ধরা আমাদের সমাজের চোখে খারাপ। অথচ নারী-পুরুষ সম্পর্ক সহজ ও স্বাভাবিক করার উদ্দেশ্য নিয়েই আজ থেকে অনেক বছর আগে আমাদের সমাজেই রচিত হয়েছিল কামসূত্র। যা ইওরোপীয় বা পশ্চিমারা এখান থেকে আমদানী করে নিয়ে গেছে সাদরে। আর আমরা সেটা দূর দূর করে তাড়িয়েছি। অশ্লীল বলেছি, 'কেবলমাত্র প্রাপ্তবয়ষ্কদের জন্য' আখ্যা দিয়ে নিষিদ্ধ করে রেখেছি। ফলে সমাজে অবদমন সৃষ্টি হয়েছে, ভারসাম্যহীনতা সৃষ্টি হয়েছে। এগুলো আমরা নিষিদ্ধ করেছি বলেই একটি ছেলে আর একটি মেয়ে পরষ্পরকে ভালবেসে চোরের মতো আচরণ করতে থাকে। বাবা-মার কাছে লুকানোর নিরন্তর চেষ্টা করতে থাকে। পালিয়ে বিয়ে করে। ধরা পড়লে ছেলেটির শাস্তি যাই হোক মেয়েটির মাথায় কলঙ্কের আকাশ ভেঙে পড়ে, তার আর কোথাও গ্রহণযোগ্যতা থাকে না, মেয়ের পরিবার একঘরে হয়ে পড়ে।

বাংলা ছবির এখনকার সবচেয়ে বড় শত্রু হল দৈনিক পত্রিকা। কোনো ধরনের বাছ বিচার না করেই ছবিকে তারা দুই ভাগে ভাগ করে ফেলেছে, সুস্থ্য ছবি আর অশ্লীল ছবি। যেসব প্রতিবেদক ক্লান্তিকরভাবে ক্রমাগত লিখে চলেছে কোন হলে কোন অশ্লীল ছবি চলছে, কী কী অশ্লীলতা আছে, গানের কথাগুলো কী কী এবং তা কতটা অশ্লীল ইত্যাদি, তারা মনে করছে তার লেখাটা বোধহয় সমাজ প্রগতির পথে ভূমিকা রাখছে, কিন্তু সে বুঝতেও পারছে না সে কীভাবে মৌলবাদকে উৎসাহিত করছে। এমনও দেখা গেছে, সেই প্রতিবেদক গোপনে ইন্টারনেটে কিংবা অন্য কোথাও পর্ণো ছবি দেখছে। কারণ এটি সত্যি তার প্রয়োজন। কিন্তু সেই প্রয়োজনটা সে বুঝতে পারছে না।

প্রথম আলোর আলপিনের ছিঃনেমা বা আনন্দ, কিছুকাল সাপ্তাহিক ২০০০-এর সিনেমা রিভিউ, হালে সমকালের নন্দনে সিনেমা হল রিপোর্ট কিংবা সংবাদের জলসা যেভাবে বাংলা ছবিকে নিমর্ূল করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে, তাতে মনে হয় যাত্রাশিল্পের মতো বাংলা ছবিও বন্ধ হয়ে গেলে তারা সবচেয়ে বেশি আনন্দ পাবেন। কারণ কোনো ধরনের দিক নির্দেশনা তাদের লেখায় নেই। তাদের লেখায় ঐ ছবির দর্শকদের রিক্সাওয়ালা বা মজুর বলে গালাগাল করার প্রয়াস আছে। নিম্নরুচি উচ্চরুচি বলে তারা রুচির উদ্ভট শ্রেণীবিভাগ আছে।

এখন সবচেয়ে বেশি দরকার 'চিত্রালী'-র মতো সিনেমা বান্ধব কাগজ। সিনেমার সমালোচনা মানে কোনো ছবিকে নাকচ করে দেয়া নয়। বরং সিনেমাকে জনপ্রিয় করার জন্য চেষ্টা করা। কিন্তু বিপত্তিটা হল, সিনেমা সমালোচকরা সিনেমা কমিউনিটির বাইরের লোক হয়ে গেছেন। এখন সিনেমা ধ্বংস করে দেয়াই তাদের প্রধান উদ্দেশ্য। আমাদের মনে রাখতে হবে, যাত্রা শিল্পে এক ধরনের তথাকথিত 'অশ্লীল' নাচ বন্ধ করে দেয়ার জন্য যাত্রা বন্ধ করে দিয়ে মোটেই প্রগতিশীল কাজ করা হয়নি। বরং জেএমবি-র কাজ সহজ করে দেয়া হয়েছে। আজ অথবা আগামীকাল জেএমবিকে যাত্রা শিল্পে বোমা মারতেই হতো, তার কাজ আপনারাই করে দিয়েছেন। এও মনে রাখতে হবে, ময়মনসিংহে বা সিলেটে সিনেমা হলে যারা বোমা মেরেছে, আপনারা তাদেরই সহযোগিতা করছেন, তাদের কাজ সহজ করে দিচ্ছেন, তারা করতো অজ্ঞ গোঁয়ারের মতো, আর আপনি তা বুদ্ধি দিয়ে করে দিচ্ছেন, জেনে করুন আর না জেনে করুন।

অশ্লীলতা আসলে কী?
সিনেমা দেখার সময় পুরো হল থাকে অন্ধকার। চোখ আর কান এই দুটো ইন্দ্রিয় কেবল কাজ করে। অন্ধকার ও শব্দনিরোধক বলে প্রক্ষিপ্ত ছবি একজন দর্শকের সাথে ইনডিভিজুয়ালি ভাব বিনিময় করে। ফলে ছবির কনটেন্ট যাই হোক তা প্রতিটি দর্শক আলাদাভাবেই উপভোগ করে। অন্ধকার থাকার কারণে পাশের সিটের দর্শকও এই উপভোগে বাধা হয়ে দাঁড়ায় না। কাজেই এখানে কোনোকিছুই শ্লীল বা অশ্লীল নয়। অনেকটা বই পড়ার মতো। বইয়ের পাঠক একজনই হয়। যৌথভাবেও পাঠ হয় বটে কিন্তু তা খুবই সাময়িক, কোনো নোটিশ বা বিজ্ঞপ্তির মধ্যেই তা সীমাবদ্ধ। কাজেই কোনো বড় লেখা, উপন্যাস বা গল্প একজন পড়লেই তার প্রকৃত আস্বাদন সম্ভব। একজন পড়লে তা কোনোভাবেই অশ্লীল নয়। এ কারণেই লেডি চ্যাটার্লিজ লাভার কিংবা হেনরি মিলারের অনেক লেখা অশ্লীলতার দোষে অভিযুক্ত হলেও ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

যখন থেকে টিভি এসেছে তখন এই ধারণার কিছু পরিবর্তন এসেছে। টিভি চলার সময় ঘর অন্ধকার হয় না, টিভির সামনে পরিবারের সবাই বসে থাকে, শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত। কাজেই ব্যক্তিগত আস্বাদন এখানে অসম্ভব। যৌনদৃশ্য দেখে সেজন্য অন্যদের কান গরম হয়। এখান থেকেই 'অশ্লীলতা' ধারণাটির সৃষ্টি। কিন্তু আমরা এখন এ ধারণাটিকেই মৌলিক মনে করছি। ফলে সিনেমায় কনটেন্ট কী থাকবে না থাকবে তার বিতর্ক করছি এই খন্ডিত ও একপেশে ধারণা থেকে।

টিভি কখনও ছবি দেখার জন্য আদর্শ হতে পারে না, কারণ ঘরে যখন টিভি চলে তখন পরিবারের কোনো শিশু হয়তো হইচই করে, কাজের মেয়ে এসে গৃহিণীকে জিজ্ঞেস করে বাটা মাছের সাথে কোন তরকারী দিয়ে রান্না করবে, কলিং বেল বাজিয়ে অতিথি এসে হাজির হয়। সবকিছুকে বজায় রেখেই ছবি দেখতে হয়। ছবি মানে কোনো সিনেমা নয়, নাটক, গান, ডকুমেন্টারি বা যে কোনো কিছু। কাজেই এ ধরনের একটি মাধ্যম যদি শ্লীল অশ্লীল ধারণা সৃষ্টি করে আমরা সেটাকেই মৌলিক বলে ধরে নিই তাহলে বিপত্তি বা বিতর্ক বাধাটাই স্বাভাবিক। কারণ টিভি একটি যৌথপাঠ, যৌথপাঠ বিব্রতকর হতেই পারে।

দ্বিতীয় বিষয়টি হল, অতীতকাল থেকেই শ্লীলতা অশ্লীলতা বিতর্ক বিদ্যমান। লেডি চ্যাটার্লিজ লাভার থেকে শুরু করে আমাদের নষ্টা মেয়ে পর্যন্ত। অনেক মামলা, অনেক দ্বন্দ্ব হয়েছে, কিন্তু বিতর্কের কোনো মীমাংসা হয়নি। অশ্লীলতার সর্বজন স্বীকৃত কোনো সংজ্ঞা আজ পর্যন্ত কেউ দিতে পারেননি।

অনেকে বলার চেষ্টা করেছেন '... যা কদর্য, যা মানুষের মনকে কলুষিত করতে পারে তা-ই অশ্লীল ...' ইত্যাদি। কিন্তু বিষয়টি যে তিমিরে সেই তিমিরেই রয়ে গেল। কী কদর্য, কী মানুষের মনকে কলুষিত করবে তাও তো ঠিক হয়নি। এভাবে যতই পেছনে যাওয়া যাবে এ ধরনেরই কোনো না কোনো শব্দ বা ধারণা রয়েই যাবে যার কোনো মীমাংসা নেই।

শিল্প অর্থে চলচ্চিত্র কেবল আর্ট নয়, ইন্ডাস্ট্রিও
বাংলাদেশে আর সব শিল্পের (ইন্ডাস্ট্রি) মতো চলচ্চিত্র শিল্পও মার খেতে চলেছে। এই শিল্পটিরও কোনো পশ্চাত সংযোগ শিল্প (ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ ইন্ডাস্ট্রি) গড়ে ওঠেনি, ফলে তৈরি হয়নি প্রফেশনালিজম। বড় ধরনের বাজেট এখানে বিনিয়োগ হয়নি। সিনেমার জন্য বাজেট একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, একথা বলাই বাহুল্য। বাজেট নেই বলেই এখনকার বাংলা সিনেমার যৌন কনটেন্টগুলো উৎকর্ষ লাভ করতে পারছে না, সেকারণেই তা কিছুটা স্থুল লাগছে। বাংলা ছবিতে যৌন দৃশ্য যতখানি দেখানো হচ্ছে তার চেয়ে অনেক বেশি দেখানো হচ্ছে বোম্বের ছবিতে, দক্ষিণ ভারতের ছবি তো আরো একধাপ এগিয়ে। কিন্তু সেগুলো দেখে অশ্লীল মনে হবে না। কারণ সেখানে ব্যবসায়িকভাবে বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করা হচ্ছে। সেসব যৌনদৃশ্যে যারা অভিনয় করছেন তারা অনেক বড় শিল্পী, নাচ থেকে শুরু করে অন্যান্য নানা কলায় তারা পেশাগতভাবেই উৎকর্ষ অর্জন করেছেন।

পশ্চাত সংযোগ শিল্প গড়ে উঠলে এখানে আলো, শব্দ, সেট ডিজাইন, সম্পাদনা, ফটোগ্রাফি, সিনেমাটোগ্রাফি এসব বিষয়ে পড়াশোনা থেকে শুরু করে গবেষণা ও পরীক্ষা নিরীক্ষার সুযোগ গড়ে উঠতো। যা সরকারী বা বেসরকারী সকল ধরনের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিকে এগিয়ে নিতে পারতো। ব্যাপক সংখ্যক উৎসাহী শিক্ষার্থী, গবেষক ছাড়াও প্রফেশনাল গড়ে উঠতো। সর্বোতভাবে যা চলচ্চিত্র শিল্পটিকেই এগিয়ে নিতো। পৃথিবীর খুব কম ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতেই বছরে শতাধিক বাণিজ্যিক ছবি মুক্তি পায়। কাজেই সে হিসেবে এফডিসি পৃথিবীর কয়েকটি বড় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির একটি। অথচ সেটিই আমরা কত অবহেলায় ধ্বংস করে দিতে উঠে পড়ে লেগেছি। মাথা ব্যথা বলে মাথা কেটে ফেলার প্ল্যান করছি। ইতিমধ্যে তথ্য মন্ত্রণালয় কঠোর আইনও করে ফেলার ঘোষণা দিয়ে ফেলেছে। না জানি কতটা কুপমুন্ডুক আর কতটা রক্ষণশীল আইন তৈরি হচ্ছে। শিল্পের স্বাধীনতা বলে যে বিষয়টি আছে তাকে মেরে ফেলার সমস্ত আয়োজন চূড়ান্ত হতে যাচ্ছে। তখন এই দৈনিক পত্রিকাওয়ালারা নিজেদের যতই প্রগতিশীল বলে দাবি করুক, সিনেমা শিল্প বন্ধ হবার দায় তারা এড়াতে পারবেন না।

'বস্তির রাণী সুরিয়া' ছবিতে নাকি পপি-র শরীর দেখা গেছে, এ বিষয়টি নিয়ে কারা মামলাও করেছে। পপি অবশ্য তা অস্বীকার করেছেন। সত্যি কোনটা আর মিথ্যা কোনটা তার চেয়ে বড় কথা আমরা ভুলে যাচ্ছি একজন শিল্পী হিসেবে একজন ফিল্ম প্রফেশনাল হিসেবে পরিচালকের কথায় পপি ধরে নিলাম শরীর দেখিয়েছেন। এটি কি তার অনেক বড় উচ্চতা নয়? শরীর দেখিয়ে যে আত্মত্যাগ তিনি করেছেন তা অবশ্যই মর্যাদার। শিল্পের স্বার্থে তার একান্ততাকে তিনি উৎসর্গ করেছেন। তার দেখানো পথে প্রফেশনাল কালচারে পরিবর্তন আসবে। টিভি নাটকে আমরা দেখি স্বামী-স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করতে গিয়ে অভিনেতা-অভিনেত্রী এক বিছানায় শুয়েও নিরাপদ একটা দূরত্ব বজায় রাখার এক দৃষ্টিকটূ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। পপির শরীর দেখানো কি এই অশ্লীল চেষ্টার চেয়ে মহত্তর নয়?

অন্ধকার থেকে হঠাৎ আলোয় আসা চোখের যন্ত্রণা
অন্ধকার থেকে আলোয় আসলে চোখ একটু পিট পিট করে। চোখে অস্বাভাবিক লাগে, জ্বালা করে। কিন্তু কিছুক্ষণ আলোয় থাকলে আবার চোখ সয়ে যায়। চোখ না সওয়া পর্যন্ত তাই ধৈর্য ধরতে হয়।

ঢাকায় বা অন্যান্য শহরাঞ্চলে আশির দশকেও সন্ধ্যার পরে রাস্তায় কোনো মেয়ে দেখা যেত না। বিশেষ প্রয়োজনে কেউ বের হয়ে পড়লেও তার দিকে দশজন ঘুরে ঘুরে তাকাতো। অনেকেই মনে করতে নিশ্চয়ই 'পতিতা' হবে। তা না হলে সন্ধ্যার পরে রাস্তায় কেন? কিন্তু যখন গার্মেন্টসের নারী শ্রমিকেরা রাত দশটার পরে দল বেঁধে বাড়ি ফিরতে লাগল তখন একইভাবে অনেকে বলতে শুরু করল দেশটা জাহান্নামের দিকে যাচ্ছে। মেয়েগুলো বেপর্দা ইত্যাদি। এখনকার রেজাল্ট তো আমরা দেখতেই পাচ্ছি। এখন রাত বারোটার সময়ও রাস্তায় মেয়ে দেখলে কারো চোখে অস্বস্তি লাগে না। কারণ চোখ সয়ে এসেছে।

সভ্যদের তাড়া খেয়ে হলিউডের পশ্চিমে পাড়ি
হলিউডে যখন প্রথম দিকে রূপালি পর্দায় চুম্বন বা যৌনতার দৃশ্য দেখা যেতে লাগল তখন নিউইয়র্ক বা ওয়াশিংটনের তথাকথিত ভদ্রলোকেরা এতটাই ছিছিক্কার শুরু করে দিল যে পুরো ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে পালিয়ে যেতে হলে পশ্চিমের অসভ্য বন্য সমাজে। সেখানকার রাউডি লোকেরা তাদের সাদরে বরণ করে নিল। কিন্তু পূবের সভ্যদের চোখ সয়ে আসতে বিশেষ সময়ও লাগেনি। তারা এখন আফশোশই করেন, আহা হলিউড লস এঞ্জেলেসে না থেকে যদি ওয়াশিংটন বা নিউইয়র্কে হতো!

আমাদের দেশেও সভ্যদের চোখ জ্বালা শুরু করেছে। কিন্তু চোখ সয়ে আসতেও বেশি সময় লাগবে না। কিন্তু কথা হল ততদিন ভদ্রলোকদের জোর করে গেলানো পুঁথির কাগজ বোঝাই পেট নিয়ে তোতা পাখি বেঁচে থাকলে হয়।

Monday, July 14, 2008

Glossary on Film Terms (T-Z)

When a particular scene is repeated and photographed more than once in an effort to get a perfect recording of some special action, each photographic record of the scene or of a repetition of the scene is known as a "take." For example, the seventh scene of a particular sequence might be photographed three times, and the resulting records would be called: Scene 7, Take l; Scene 7, Take 2; and Scene 7, Take 3.
TBC (Time Base Corrector): An electronic device with memory and clocking circuits to correct video signal timing errors which affect image stability and color when editing from multiple video tape sources.
TELECINE: Device for transferring motion picture film to video tape.
THIN. As applied to a photographic image, having low density.
TIME CODE: A frame numbering system adopted by SMPTE that assigns a number to each frame of video which indicates hours, minutes. seconds and frames (e.g., 01:42:13:26).
TIMING. The process of selecting the printing values for color and density of successive scenes in a complete film to produce the desired visual effects.
TRAVELLING MATTE. A process shot in which foreground action is superimposed on a separately photographed background by optical printing.
TYPE C: SMPTE standard for 1-inch non-segmented helical video recording format.

U-MATlC: Trade name for 3/4-inch video cassette system originally developed by Sony. Now established as the ANSI (American National Standards Institute) Type F video tape format.
ULTIMATTE: Trade name of a high-quality special effects system similar in application to a chromakey switcher. Electronic implementation of the "blue screen" used for motion picture special effects.
UNDERSCAN: Reducing height and width of the picture on a video monitor so that the edges, and thus portions of the blanking, can be observed.
UNSQUEEZED PRINT. A print in which the distorted image of an anamorphic negative has not been corrected for normal projection.
USER BITS: Portions of VITC and LTC reserved for recording information of the user's choosing, e.g., Keykode numbers, footage count, etc.

VECTORSCOPE: An oscilloscope designed for television which is used to set up and monitor the chrominance portion of a video signal. See, also, waveform monitor.
VERTICAL INTERVAL: Indicates the vertical blanking period between each video field. Contains additional scan lines above the active picture area into which non-picture information (captioning, test and control signals, user bits) can be recorded.
VERTICAL SYNC: Synchronizing pulses used to define the end of one television field and the start of the next, occurring at a rate of approximately 59.94 Hz (color), and 60 Hz (black & white).
VISION MIXER: British video switcher.
VITC (Vertical Interval Time Code): Time code recorded in the vertical blanking interval above the active picture area. Can be read from video tape in the "still mode."

WAVEFORM MONITOR: Oscilloscope designed for television which looks at luminance and all other parts of the composite video signal. See, also, vectorscope.
WEAVE. Periodic sideways movement of the image as a result of mechanical faults in camera, printer or projector.
WET-GATE PRINTING. A system of printing in which the original is temporarily coated with a layer of liquid at the moment of exposure to reduce the effect of surface faults.
WIDESCREEN. General term for form of film presentation in which the picture shown has an aspect ratio greater than 1'33:1.
WINDOW DUB: "Burned-in windows," usually on a video workprint, displaying Keykode numbers and time code, footage count, audio time code, scene, take, etc. (May also be burned in.)
WIPE. Optical transition effect in which one image is replaced by another at a boundary edge moving in a selected pattern across the frame.
WORK PRINT. In a motion picture studio or processing laboratory, a rough print of a motion picture film used for editing and study of action and continuity.




Glossary on Film Terms (N-S)

NON-DROP FRAME. A type of SMPTE time code that continuously counts a full 30 frames per second. As a result, non-drop-fame time code does not exactly match real time. (See also Drop Frame.)
NTSC: National Television Standards Committee: Committee that established the color transmission system used in the U.S. and some other countries. Also used to indicate the system itself, consisting of 525 lines of information, scanned at approximately 30 frames per second.

OFF-LINE. Preliminary editing done on relatively low-cost editing systems, usually to provide an EDL for final on-line editing and assembly of the finished show.
ON-LINE. Final editing or assembly using master tapes to produce a finished program ready for distribution. Often preceded by off-line editing, but in some cases programs go directly to the on-line editing suite. Usually associated with high-quality computer editing and digital effects.
OPTICAL EFFECTS. Trick shots prepared by the use of an optical printer in the laboratory, especially fades and dissolves.
OPTICAL SOUND. A sound track in which the record takes the form of variations of a photographic image.
OUT-TAKE. A take of a scene which is not used for printing or final assembly in editing.
OVERCOAT. A thin layer of clear or dyed gelatin sometimes applied on top of the emulsion surface of a film to act as a filter layer or to protect the emulsion from abrasion during exposure and processing.

PAINTBOX. Trade name of a computer graphics system manufactured by Quantel. Used to create two-dimensional graphics, transpose and transform objects and change colors. The computer graphics generator for Quantel's Harry system.
PAL (Phase Alternation by Line). Color television system developed in Germany, and used by many European and other countries. PAL consists of 625 lines scanned at a rate of 25 frames per second.
PERFORATIONS. Regularly spaced and accurately shaped holes which are punched throughout the length of a motion picture film. These holes engage the teeth of various sprockets and pins by which the film is advanced and positioned as it travels through cameras, processing machines, and projectors.
PITCH. (1) That property of sound which is determined by the frequency of the sound waves. (2) Distance from the center of one perforation on a film to the next; or from one thread of a screw to the next; or from one curve of a spiral to the next.
PROTECTIVE MASTER. A master positive from which a dupe negative can be made if the original is damaged.
PULL-DOWN. The telecine transfer relationship of film frames to video fields. Film shot at 24 fps is transferred to 30 fps NTSC video with an alternating two-field/three-field relationship.


A frame carrying film in a processing machine.
RASTER. The scanned area comprising the active portion of a video signal displayed on a cathode ray tube (CRT).
REDUCTION PRINTING. Making a copy of smaller size than the original by optical printing.
REGISTRATION. The accurate positioning of film or the images formed on it.
RELEASE PRINT. In a motion picture processing laboratory, any of numerous duplicate prints of a subject made for general theater distribution.
RETICULATION. The formation of a coarse, crackled surface on the emulsion coating of a film during improper processing. If some process solution is too hot or too alkaline, it may cause excessive swelling of the emulsion and this swollen gelatin may fail to dry down as a smooth homogeneous layer.
REVERSAL PROCESS. Any photographic process in which an image is produced by secondary development of the silver halide grains that remain after the latent image has been changed to silver by primary development and destroyed by a chemical bleach. In the case of film exposed in a camera, the first developer changes the latent image to a negative silver image. This is destroyed by a bleach and the remaining silver halide is converted to a positive image by a second developer. The bleached silver and any traces of halide may now be removed with hypo.
RGB. Red, green & blue, the primary color components of the additive color system used in color television.
RIPPLE. Automatic updating of an EDL after a length-altering edit. "Ripple the list."

A photographic film whose base is fire-resistant or slow burning. At the present time, the terms "safety film" and "acetate film" are synonymous.
SECAM (Systeme Electronique Pour Colour Avec Memorie). The color television system developed in France, and used there and in most of the former communist-block countries and a few other areas including parts of Africa.
SENSITOMETER. An instrument with which a photographic emulsion is given a graduated series of exposures to light of controlled spectral quality, intensity, and duration. Depending upon whether the exposures vary in brightness or duration, the instrument may be called an intensity scale or a time scale sensitometer.
SKIP FRAME. An optical printing effect eliminating selected frames of the original scene to speed up the action.
SOFT. The opposite of "hard". (1) As applied to a photographic emulsion or developer, having a low contrast. (2) As applied to the lighting of a set, diffuse, giving a flat scene in which the brightness difference between highlights and shadows is small.
SPLICE. Any type of cement or mechanical fastening by which two separate lengths of film are united end-to-end so they function as a single piece of film when passing through a camera, film processing machine, or projector.
SPROCKET. A toothed driving wheel used to move film through various machines by engaging with the perforation holes.
STEADY GATE. A pin-registered device manufactured by Steady Film for precise teleclne transfers. Provides more stable images than EPR, but does not operate in real time.
STEP PRINTER. A printer in which each frame of the negative and raw stock is stationary at the time of exposure.
STILL STORE. Device which stores individual video frames, either in analog or digital form, allowing extremely fast access time.
STRIP. Part of a wide roll of manufactured film slit to its final width for motion picture use.
STRIPE. A narrow band of magnetic coating or developing solution applied to a length of motion picture film.
SWEETENING. Audio postproduction, at which time minor audio problems are corrected. Music, narration and sound effects are mixed with original sound elements.
SWITCHER. Device with a series of input selectors that permits one or more selected inputs to be combined, manipulated and sent out on the program line.
SYNC, SYNCHRONIZATION. Two picture records or a picture record and a sound record are said to be "in sync" when they are placed relative to each other on a release print so they can be projected in correct temporal or spacial relationship. When this condition is not met, the two records are said to be "out of sync."